পালস অক্সিমিটারের ব্যবহার

501
0
Share:

মানবদেহের হৃদস্পন্দনের গতি ও শরীরে রক্তের অক্সিজেনের মাত্রা মাপার যন্ত্রের নাম অক্সিমিটার। অক্সিমিটার হাতের আঙ্গুলের মাথায় লাগিয়ে অক্সিজেনের পরিমাণ পরিমাপ করা হয়। যে কেউ এটি ব্যবহার করতে পারবেন।

মানব দেহে অক্সিজেনের পরিমাণঃ একজন সুস্থ মানুষের শরীরে অক্সিজেনের পরিমান থাকে ৯৫ থেকে ৯৮ শতাংশ। মানবদেহে অক্সিজেনের পরিমাণ কমে গেলে হাইপোক্সিয়া রোগের দেখা দেয়। যারফলে শ্বাসকষ্ট, মাথাব্যাথা ,বুকব্যাথা ইত্যাদি সমস্যা দেখা দেয় । এ রোগ মানব দেহের কার্যক্ষমতা একেবারে দুর্বল করে ফেলে।

অক্সিমিটারের ফলাফল প্রকাশঃ অক্সিজেনের উপর নির্ভর করে অক্সিমিটার ফলাফল প্রকাশ করে থাকে। অক্সিজেনের মাত্রা কম বা বেশি হলে এর ফলও হবে ভিন্ন। তবে ফলাফল ±২% কম বা বেশি হলে স্বাভাবিক মাত্রা হিসেবে ধরা হয় ।

আঙ্গুল নির্বাচনঃ অক্সিমিটার ব্যবহারের ক্ষেত্রে আঙ্গু্ল নির্বাচন করাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। হাতের আঙ্গুল নির্বাচনের কম বেশি হলে কাঙ্ক্ষিত ফলাফল নাও পাওয়া যেতে পারে। তবে যে হাতে বেশি কাজ করেতে অভ্যস্থ সেই হাতের বুড়ো আঙ্গুল অথবা মধ্যমা আঙ্গুল নির্বাচন করতে হবে তাহলে অক্সিমিটারের ফলাফলও ভালো পাওয়া যাবে।

অক্সিমিটারের ভুলঃ অক্সিমিটারের ফলাফল নির্ভর করে হাতের তাপমাত্রার উপর । যদি কখনো হাতের তাপমাত্রা শরীরের তাপমাত্রার চেয়ে কম হয় তাহলে অক্সিমিটার সঠিক ফলাফল নাও দিতে পারে । এক্ষত্রে আগেই ভালোভাবে নিশ্চিত হতে হবে যেন পরিক্ষণের সময় শরীরের চেয়ে হাতের তাপমাত্রা বেশি থাকে ।

যাদের জন্য অক্সিমিটারঃ যারা হাঁপানি, ব্রঙ্কাইটিস ও শ্বাসতন্ত্রের জটিলতায় ভুগছেন, অক্সিমিটার তাদের হাতের কাছে রাখা উচিৎ। করোনা রোগের সংস্পর্শে এলে এটি ব্যবহার করতে পারেন। এছাড়া ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ ও দীর্ঘমেয়াদি ফুসফুস কিংবা হৃদরোগে ভুগলে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বাড়ে। তাই এসব রোগীর উচিত রক্তে অক্সিজেনের মাত্রার দিকে নজর দেওয়া।

ভালো মানের অক্সিমিটারের বর্তমান বাজার তুলনা করতে পারেন বিডিস্টল.কম থেকে ।

Share: